মঙ্গলবার - জুলাই ১৬ - ২০১৯ ||
Home / অর্থনীতি / মনপুরায় ইরি-বোরের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাঁসি

মনপুরায় ইরি-বোরের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাঁসি

স্বাধীনকথা ডট কম
মনপুরায় ইরি-বোরে ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। ধানের ফলন ভালো হওয়ায় কৃষকের মাঝে খুশির আমেজ লক্ষ করা গেছে। ধান কিছু পাকছে আর কিছু পাকতে শুরু করেছে। আবার কিছু ধান কাটাও হচ্ছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় তারা ঘরে ভালেভাবে ধান তুলতে পারবেন। ঘুর্ণিঝড় ফণী প্রভাব ফেলতে পারেনি মনপুরা ইরি-বোরে ধানের উপর। নতুন ধান ঘরে আসার সাথে সাথে পিঠা-পায়েসে মেতে উঠবেন কৃষাণীরা।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবছর ৭শ‘ হেক্টর জমিতে কৃষকেরা ধান চাষাবাদ করেন। ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় উৎপাদনের লক্ষ মাত্রা ছাড়িয়ে যাবেন বলে ধারনা করছেন কৃষি অফিস। ব্রিধান ৫২/৫৪/৪৪/৪৭ ও ২৩ ধান চাষ করেন কৃষকেরা।
ধান চাষ করে এবার লাভবান কৃষকেরা। ধানের দাম গড়ে ৬শত ৫০ টাকা থেকে ৭শত টাকা। যা কৃষকের খরচ পুশিয়ে প্রতি ৮ শতাংশে ১ হাজার টাকা লাভ থাকবে। উপজেলার চরযতিন গ্রামের আলাউদ্দিন হাওলাদার ও আকলিমার সাথে আলাপকালে তারা জানান, প্রতি ৮ শতাংশ জমি চাষ করতে তাদের খরচ হয়েছে চাষ খরচ ২শত টাকা রোপনের জন্য প্রমিক খরচ ৫শত টাকা, বীজ ধান বাবদ ২শত টাকা, সার ও ঔষধ বাবদ খরচ হয়েছে ১২শত টাকা ও ধান কাটার সময় খরচ হবে শ্রমিক খরচ ৫‘শ টাকা। মোট ৮ শতাংশ জমি চাষ করতে খরচ হয়েছে ১ হাজার ৭শত টাকা।
দক্ষিণ সাকুচিয়ার কৃষক ছালাউদ্দিন হাওলাদার বলেন, মনপুরার সাধারণ কৃষক এখন মহা আনন্দে রয়েছেন। ধানের বাম্পার ফলনে ধান বিক্রির অর্থ দিয়ে কে কি কাজ করবেন তা নির্ধারিত করতে শুরু করেছে। সরকার কৃষিতে সার-বীজ ভূতূর্র্কি দেয়া কৃষক চাষাবাদে ব্যপক আগ্রহ বাড়ছে। আগামী সৃজন গুলোতে আরো বেশী জমি আবাদ করবেন বলে সাধারণ কৃষক জানিয়েছেন।
প্রতি ৮ শতাংশ জমিতে ধান উৎপাদন হবে গড়ে ১৬থেকে ২০ মন। প্রতিমন ধান গড়ে ৬০০ টাকা ধরে বিক্রয় করলে মোট টাকা হবে ৯ হাজার ৬শত টাকা। এবছরই কৃষকেরা একটু লাভের মুখ দেখতে পাবেন।
এব্যাপারে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা গোপীনাথ দাস বলেন, ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাগন মাঠে ময়দানে গিয়ে সাধারণ কৃষকদেরকে পরামর্শ দিয়ে কৃষি উৎপাদনে সহায়তা করেছে বিধায় কৃষকেরা লাভের মুখ দেখবেন।
এব্যাপারে মনপুরা কৃষি অফিসার মো. হারুন অর রশিদ বলেন, এবার মনপুরায় ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। আবহাওয়া ভালো রয়েছে বিধায় কৃষকেরা ধান ঘরে তুলে একটু ভালো ভাবে দিনাতিপাত করতে পারবেন। ঘূর্ণিঝড় ফণী ইরিবোরের ক্ষতি করতে পারেনি। ফলে উৎপাদনের লক্ষ মাত্রা এবছর ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি বলেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বশির আহম্মেদ বলেন, মনপুরা ঘরবাড়ী কম থাকায় আবাদী জমির পরিমান বেশী রয়েছে। ফলে ভাল ফসল হলেও নবান্নে উৎসবে কৃষকের মনে আনন্দের বন্যা বইছে। কৃষি বিপ্লব ঘটাতে কৃষি অফিসের সহাযোগিতা নিয়ে কৃষক এবার চাষাবাদ করেছেন।
মঙ্গলবার ১৪-০৫-২০১৯ খৃষ্টাব্দ

About মোঃ রিয়াজ মোর্শেদ, চরফ্যাশন, ভোলা।

Check Also

ডারবান চলচ্চিত্র উৎসবে ‘হাসিনা’: অ্যা ডটারস টেল’

স্বাধীনকথা ডট কম দক্ষিণ আফ্রিকায় অনুষ্ঠিতব্য ৪০তম ডারবান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হবে  প্রধানমন্ত্রী শেখ …

উবার চালকের হাতে শ্লীলতাহানির শিকার অভিনেত্রী

স্বাধীনকথা ডট কম উবার চালকের হাতে শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছেন টলিউড অভিনেত্রী স্বস্তিকা দত্ত। বুধবার সকালে …

শাকিব খানের নতুন ছবি আগুন, নায়িকা জাহারা মিতু

স্বাধীনকথা ডট কম মিতু ২০১৭ সালে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’-এর  প্রযোগিতার প্রথম রানার আপ হওয়া ছাড়াও  …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *