শুক্রবার - আগস্ট ২৩ - ২০১৯ ||
Home / অর্থনীতি / তজুমদ্দিনের মেঘনায় ইলিশের আকাল

তজুমদ্দিনের মেঘনায় ইলিশের আকাল

স্বাধীনকথা ডট কম
তজুমদ্দিন থেকে হেলাল উদ্দিন লিটন
ভোলার তজুমদ্দিনের মেঘনায় ইলিশের ভরা মৌসুম শুরু হলেও চলছে ইলিশের আকাল। মৌসুমের আড়াই মাস শেষ হয়ে গেলেও ইলিশের দেখা না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েছে জেলেরা। যে কারণে ঈদে আনন্দ নেই জেলে পল্লীতে। এনজিও’র ঋণের টাকা আর মহাজনের দাদনের টাকা দিতে না পারায় অনেকে পালিয়ে বেড়ায়। আবার কেউ কেউ ছেড়ে দিচ্ছেন পুরনো এই পেশা।

উপজেলা মৎস্য অফিস সুত্রে জানা যায়, মেঘনা নদীর ৯০ কিলোমিটার এলাকায় ইলিশ শিকার করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করেন উপজেলার প্রায় ২০ হাজার জেলে। বছরের জুন মাস থেকে পূরোদমে ইলিশের মৌসুম শুরু হওয়ায় অনেক জেলে মহাজনের দাদন ও এনজিওর কাছে ঋণ নিয়ে নতুন নৌকা এবং জাল কিনে নদী ইলিশ মাছ ধরার পূর্ণ প্রস্তুতি নদীতে নামে।

কিন্তু জেলেরা দলবেঁধে মাছ ধরতে নদীতে গিয়ে দিন-রাত জাল ফেলে মাত্র ৫-১০টি জাটকা ইলিশ নিয়ে হতাশ হয়ে ঘরে ফিরতে হয়। এই মাছ বিক্রি করে এনজিওর ঋণ ও মহাজনের দাদনের টাকা পরিশোধতো দূরের কথা নদীতে যেতে ইঞ্জিনের জন্য ক্রয় করা ডিজেলের দামও হয় না। যে কারণে দোকান থেকে চাল, ডাল, মরিচ ও তেল কিনে টাকা দিতে না পারায় দোকানদারও নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামল দিচ্ছে না। মেঘনা নদীতে ইলিশের এমন আকাল হওয়ায় জেলেদের মাঝে কোরবানির ঈদ নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়। তাই তজুমদ্দিনে জেলে পল্লীতে এবারের ঈদে নেই কোন আনন্দ।

জানতে চাইলে শশীগঞ্জ এলাকার জেলে দেলোয়ার হোসেন (৭০) বলেন, নদীতে মাছ নাই। দিন-রাত জাল ফেলে ৫-১০ টা মাছ পাই তা বিক্রি করে যে টাকা হয় তাতে ডিজেলের দাম হয় না। তারপরও পোলাপাইন নিয়ে অনেক কষ্টে সংসার চলে আর এবারে ঈদতো আমাদের কাছে স্বপ্নের মতো। ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে চিন্তা ততই বাড়ছে কারণ নদীতে মাছ না থাকায় পোলাপাইন ও পরিবারের জন্য কিছুই করতে পারছিনা এটা অনেক কষ্টের।

জানতে চাইলে শশীগঞ্জ ঘাটের মৎস্য আড়ৎদার সমিতির সভাপতি আবুল হাসেম মহাজন বলেন, আমরা জেলেদেরকে দাদন দিয়েছি যেমনি তেমনি আবার আমরাও ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়েছি। নদীতে মাছ না থাকায় জেলেরা দাদনের টাকা দিতে না পারায় আমরা ব্যাংক ঋণ পরিশোধ করতে পারছিনা খুব চাপে রয়েছি।

উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মু.মাহফুজুর রহমান বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে মাছ পড়ার মৌসুম হওয়া সত্তেও জেলেদের জালে মাছ ধরা পড়ছেনা। ইলিশের বংশ বিস্তারের সময় (মাইগ্রেশন) ঘনিয়ে আসলে আশ্বিন-কার্তিক মাসের দিকে প্রচুর মাছ পড়ার সম্ভবনা রয়েছে। মাছ তাদের বংশ বিস্তারের জন্য এখনো নদীর দিকে না আসলেও বর্তমানে সাগরে প্রচুর ইলিশ জেলেদের জালে ধরা পড়ছে বলেও জানা তিনি।
রবিবার ১১-০৮-২০১৯ খৃষ্টাব্দ

About মোঃ রিয়াজ মোর্শেদ, চরফ্যাশন, ভোলা।

Check Also

রাজশাহীতে শিক্ষকের বুকের উপর পা তুলে চাঁদা চাইলেন অধ্যক্ষ

মাসুদ রানা রাব্বানী (রাজশাহী ব্যুরো প্রধান): রাজশাহীতে শিক্ষকের বুকের উপর পা তুলে চাঁদা চাইলেন, সেই ধর্ষক অধ্যক্ষ জহুরুল …

শাহজাদপুরে ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন দন্ডপ্রাপ্ত ২২ বছরের পলাতক আসামী গ্রেফতার

স্বাধীন কথা ডটকম, রোববার, ১৮ আগস্ট- ২০১৯ খ্রিষ্টাব্দ : সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে  ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় …

ধরা-ছাড়া আর লেনদেনের মধ্য দিয়েই চলছে কাটাখালি থানা পুলিশের মাদক বিরোধি অভিযান

রাজশাহী ব্যুরো প্রধান : ধরা ছাড়া আর গোপন লেনদেনের মধ্য দিয়েই চলছে রাজশাহী নগরীর কাটাখালি থানা পুলিশের মাদক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *