শুক্রবার - ফেব্রুয়ারি ১৫ - ২০১৯ || ৭ই শাওয়াল, ১৪৩৯ হিজরী || ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ ( বর্ষাকাল )
Home / অর্থনীতি / জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে অনন্য হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ

জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে অনন্য হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ

চলতি অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার সময় সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী ও বর্তমান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছিলেন যে বাংলাদেশ ৭ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে সক্ষম। সম্প্রতি বিশ্ব ব্যাংক জিডিপি ৭ শতাংশের বেশি ছাড়িয়ে যেতে পারে এরকম ৯টি দেশের নাম প্রকাশ করেছে। বিশ্বের সেই ৯টি দেশের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ।

বিশ্ব ব্যাংকের সেই প্রতিবেদনে দক্ষিণ এশিয়ার রয়েছে চারটি ও আফ্রিকার রয়েছে পাঁচটি দেশ। জিডিপি ৭ শতাংশের বেশি প্রবৃদ্ধির দেশগুলো হলো: বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান, মালদ্বীপ, জিবুতি, আইভরি কোস্ট, ইথিওপিয়া, ঘানা ও রুয়ান্ডা। এই দেশগুলোর ভিতর বাংলাদেশ ও ভারত উদীয়মান বাজার ও উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। বিশ্বব্যাংকের গ্লোবাল ইকোনমিক প্রসপেক্টাস-২০১৯ এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে বাংলাদেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি এই বছর ৭ শতাংশ ছাড়িয়ে গেলেও এর পরের তিন অর্থবছরে তা কিছুটা কমতে পারে। এই প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধির কারণ হিসেবে সংস্থাটি বলেছে ব্যক্তি খাতের ভোগ চাহিদা ও সরকারি ব্যয় বৃদ্ধিই চলতি অর্থবছরে ৭ শতাংশ বা তার বেশি প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়তা করবে।

বিশ্ব ব্যাংকের সেই প্রতিবেদনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অর্থনৈতিক সম্ভাবনার কথা তুলে ধরা হয়েছে। সেখানে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর প্রবৃদ্ধি নিয়ে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের মতে, দক্ষিণ এশিয়া হলো বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত অগ্রসরমাণ অর্থনৈতিক অঞ্চল। বিশ্ব ব্যাংক দক্ষিণ এশিয়ার ইতিবাচক সম্ভাবনার সাথে কিছু নেতিবাচক সম্ভাবনার কথাও উল্লেখ করেছে।

তারা মনে করছে, দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশগুলোর রাজনৈতিক কারণে এর অর্থনৈতিক সম্ভাবনা হুমকির সম্মুখীন হতে পারে। তারা আরও বলেন, নির্বাচন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দেশগুলোতে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হতে পারে। যার বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে অর্থনীতিতে।

বিশ্ব ব্যাংকের পূর্বাভাস অনুযায়ী দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর ভেতর চলতি অর্থবছরে সব থেকে বেশি প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে ভুটান। চলতি অর্থ বছরে ভুটান ৭ দশমিক ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে পারে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। ভারতের দশমিক ৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হতে পারে। তৃতীয় স্থানে থাকবে বাংলাদেশ। এ ছাড়া পাকিস্তান ও নেপাল যথাক্রমে ৩ দশমিক ৭ শতাংশ ও ৫ দশমিক ৯ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করবে। অর্থবছরের হিসাবে এই পাঁচটি দেশের প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। আর পঞ্জিকাবর্ষের হিসাবে বাকি তিনটি দেশের প্রবৃদ্ধির পূর্বাভাস দিয়েছে বিশ্বব্যাংক। দেশগুলোর মধ্যে ২০১৮ সালে মালদ্বীপ ৮ শতাংশ, শ্রীলঙ্কা ৩ দশমিক ৯ শতাংশ ও আফগানিস্তান ২ দশমিক ৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে পারে।

রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও ক্ষমতার ধারাবাহিকতার জন্যই দেশের অর্থনীতি হাঁটছে সমৃদ্ধির পথে। দেশের জনগণ মনে করছে নতুন সরকারের হাত ধরে এই দেশ সমৃদ্ধির পথে বহু দূর এগোবে।

About মো: শামসুজ্জোহা, গাইবান্ধা

Check Also

এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ হওয়ার পথে বাংলাদেশ

সমসাময়িক সময়ে বাংলাদেশ পৃথিবীর অন্যতম উদীয়মান অর্থনীতির দেশ। বর্তমান সরকারের অর্থনীতিবান্ধব পরিকল্পনাসমূহ বাস্তবায়নের ফলে সমৃদ্ধ …

অব্যাহত থাকছে রফতানির গতিময়তা

বর্তমান সরকারের আমলে বাংলাদেশে বিদ্যমান অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা ও বৈশ্বিক অস্থিরতা মোকাবেলা সত্ত্বেও দেশের রফতানি …

রপ্তানিতে অর্ধেকেরও বেশি কর-সুবিধা দিবে নতুন সরকার

শিল্পখাতের উন্নয়ন ও বিস্তৃতির লক্ষ্যে রপ্তানিতে গত সেপ্টেম্বরেই উৎসে কর কমিয়ে দশমিক ৬০ শতাংশ করেছিল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *