মঙ্গলবার - জুলাই ১৬ - ২০১৯ ||
Home / প্রচ্ছদ / চর কুকরি-মুকরী মুখরিত অতিথি পাখির কলকাকলিতে

চর কুকরি-মুকরী মুখরিত অতিথি পাখির কলকাকলিতে

স্বাধীনকথা ডট কম

রিয়াজ মোর্শেদ, চরফ্যাশন, ভোলা।

শীতের আমেজ এখন প্রকৃতিতে। শীতকাল এলেই বংলাদেশ থেকে তিন-চার হাজার মাইল দূরের শীতপ্রধান অঞ্চল সূদুর সাইবেরিয়া থেকে প্রাকৃতিক নিয়মে অতিথি পাখি আসে। শীত মৌসুমে বাংলাদেশে আসা অতিথি পাখির প্রায় অর্ধেক আসে দ্বীপ ভোলা উপকুলের পলিময় সমতলে। অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হচ্ছে ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে মেঘনা ও তেতুঁলিয়া নদীর মোহনায় অবস্থিত এক নয়নাভিরাম চর, যার নাম চর কুকরি মুকরী।

অন্যান্য বছরের মত এবারো ভোলার দক্ষিণে বঙ্গোপসাগরের কোলঘেঁষা চরকুকরি মুকরী, চর শাহজালাল, চরশাজাহান, চর পিয়াল, আইলউদ্দিন চর, চরনিজাম, আন্ডার চর, দমার চর, ডেগরারচরসহ শতাধিক ডুবোচরে অথিতি পাখি আসতে শুরু করছে। এসব চরে খাবার সংগ্রহ শেষে বিপদে আশ্রয় নেয় পার্শ্ববর্তী চর কুকরি মুকরীর ম্যানগ্রোভ বাগানে।

চর পাতিলার মাঝি আলাউদ্দিন, মাছ ব্যাবসায়ী রফিক ও ছাত্র শাহিন জানান, চর কুকরি মুকরী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হাসেম মহাজনের নির্দেশ অনুযায়ী, এই পাখিগুলোকে আমরা কোনো শিকারীদের কে মারতে দেই না। আমরা পাখিগুলোকে দেখে রাখি। চর কুকরি মুকরী  বাজারের দোকানী সালাম জানান, চরকুকরি মুকরীতে অনেক পর্যটকও আসে।তারা পাখি দেখে অনেক আনন্দ পায়।
প্রতিবছর এই সময় এখানে আসতে শুরু করে হাজার হাজার অতিথি পাখি এবং গরমকালে চলে যায়।

ঢোকা বড়োতে আসা প্রকৃতি প্রেমি নাজমু হোসনে বলেন, চর কুকরি মুকরীতে  রং বেরঙের পাখির ঝাঁক মন কেড়ে নিবে যে কোন মানুষের, এছাড়া ও সারি সারি নারিকেল গাছ আর বিশাল বালু চরটি দেখে আমার মনে হয়েছিলো আমি কোন এক সৈকতে পাড়ে আছি।

চর কুকরি- মুকরী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হাসেম মহাজন বলেন, অতিথি পাখি রক্ষায় এলাকার সমস্ত মানুষকে মাইকিং করে দিই। যাতে তারা পাখিদের নিধন না করে। এছাড়াও আমাদের গ্রাম পুলিশ সব সময় টহল দেন।

বঙ্গপোসাগরের ঢেউ,সবুজ বন আর সাইবেরিয়া থেকে ছুটে আসা অতিথি পাখিরাই পর্যটকদের প্রধান আকর্ষণ হয়ে উঠেছে। তাই এদের রক্ষায় বিশেষ ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেন এ জনপ্রতিনিধি।

ভোলার উপকূলীয় বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো.ফরিদ উদ্দিন মিঞা বলেন, শীতপ্রধান অঞ্চল থেকে ছুটে আসা অতিথি পাখির কল কাকলিতে মুখর ভোলার উপকূলীয় চরাঞ্চলগুলো। শীতের হিমেল হাওয়া শুরুর সাথে সাথে নিজেদের জীবন বাঁচাতে অতিথি পাখি দল বেঁধে হাজির হয় এ অঞ্চলে। সাগরকূলের ডুবোচরগুলো পরিণত হয়েছে অতিথি পাখির অভয়ারণ্যে। প্রায়ই দুর্বৃত্তদের দেয়া বিষটোপ ও মরণফাঁদে প্রাণ হারায় এসব অতিথি পাখি। তাই আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তায় অতিথি পাখি রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ পুলিশ ও কোস্টগার্ডের সঙ্গে সমন্বয় করে এবং তাদের সহযোগিতা নিয়ে অতিথি পাখিদের যেন কেউ নিধন কেরতে না পারে সেই জন্য আমাদের টহল অব্যাহত থাকবে।

রোববার, ১৭ ডিসেম্বর- ২০১৮ খ্রিষ্টাব্দ

About মোঃ রিয়াজ মোর্শেদ, চরফ্যাশন, ভোলা।

Check Also

সাবেক প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ ইন্তেকাল করেছেন

স্বাধীনকথা ডট কম : বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান, সাবেক রাষ্ট্রপতি এবং জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন …

গাইবান্ধায় সকল নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত: নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

কয়েকদিন হলো চলা ভারী ও হালকা বর্ষণ এবং উজান থেকে নেমে আসা ঢলে গাইবান্ধার নদ …

গাইবান্ধায় বন্যা কবলিত মানুষের মাঝে ত্রান বিতরন

গাইবান্ধা সদর উপজেলার পানিবন্দি মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয় । শনিবার দুপুরে কামারজানি ইউনিয়নের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *